ত্রাণ প্রতিমন্ত্রীকে কটুক্তি করা মামলার আসামী রাজু পালিয়েছে। গ্রেফতারে পুলিশের অভিযান।

0
138

জাভেদ মোস্তফা:-
বাংলাদেশ সরকারের দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী এনামুর রহমানকে কটুক্তি ও গালিগালাজের অভিযোগে রাজু আহমেদ (৪০) নামে এক শ্রমিকলীগ নেতার বিরুদ্ধে আইসিটি আইনে মামলা দায়ের করা হয়েছে। আশুলিয়া ইউপি চেয়ারম্যান সাহাব উদ্দিন মাদবর এই মামলা করেছেন।রোববার সন্ধায় বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন আশুলিয়া থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) জাবেদ মাসুদ। এর আগে শনিবার (২০ জুন) গভীর রাতে তার বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়। এ সময় রাজু বাসায় অবস্থান করছিল, খবর পেয়ে সে রাতেই হাওয়া হয়ে যায়।
রাজু আহমদে আশুলিয়ার চাঁনগাও এলাকার শহীদুল্লাহর ছেলে। তিনি নিজেকে যুবলীগ/শ্রমিক লীগ নেতা হিসেবে পরিচয় দেন।

মামলার এজাহার সূত্রে জানা যায়, বেশ কিছুদিন ধরেই কখনও আশুলিয়া ইউপি যুবলীগ, কখনও শ্রমিক লীগ আবার কখনও কৃষক লীগের নেতা পরিচয় দিয়ে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রীকে উদ্দেশ্য করে অশোভন ও অকথ্য ভাষায় গাল মন্দ সহ প্রকাশ্যে মানহানিকর বক্তব্য রটিয়ে বেড়াতো। তিনি জাতীয় নির্বাচনে সিল মেরে ত্রাণ প্রতিমন্ত্রীর নির্বাচন করে পাশ করিয়েছে বলে বক্তব্য দান করে জাতীর নির্বাচনকে কলুষিত করার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। সম্প্রতি ত্রান প্রতিমন্ত্রীকে উদ্দেশ্য করে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজের একটি অডিও রেকোর্ড সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইসবুকের একটি আইডি থেকে ছড়িয়ে দেয়া হয়। ওই অডিও রেকোর্ডের মাধ্যমে অশালিন গালিগালাজ ও মানহানিকর তথ্য পোষ্ট করে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রীর সম্মানহানী হওয়ায় তার বিরুদ্ধে আইসিটি মামলা দায়ের করা হয় ।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ও আশুলিয়া থানার উপ-পরিদর্শক নুরুল হুদা ভুঁইয়া জানান, দুর্যোগ ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রীকে উদ্দেশ্য করে গালিগালাজ করা রাজু আহমেদ নামের এক ব্যক্তির বিরুদ্ধে আইসিটি আইনে মামলা দায়ের হয়েছে। তাকে গ্রেফতারের জন্য বিভিন্ন এলাকায় অভিযান চালানো হচ্ছে বলেও জানান তিনি।
এঘটনায় স্থানীয় আওয়ামী লীগ ও এর অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীরা তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে অভিযুক্তকে গ্রেফতারের জোর দাবি জানিয়েছেন।
জানা যায়,অভিযুক্ত আশুলিয়ার চাঁনগাঁয়ের বাসিন্দা রাজু আহমেদ নিজেকে যুবলীগ নেতা পরিচয় দিয়ে থাকেন। এছাড়া রাজু গ্রুপ নামের একটি প্রতিষ্ঠানের মালিকও তিনি।তিনি তিতাস গ্যাসের অবৈধ সংযোগ দিয়ে কোটি চাকা হাতিয়ে নিয়েছেন বলেও অভিযোগ রয়েছে।তিনি আশুলিয়ার একটি সড়কের রিপিয়ারিং কাজ নিজ অর্থে করিয়ে সরকার বিরোধী বক্তব্য প্রদান করে জনপ্রিয়তা লাভের চেয্টা করেন।তার অবৈধ ইট খোলার ব্যবসা আছে।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ফাঁস হওয়া অডিও রেকর্ড থেকে জানা যায়, রাজু আহমেদ নামে নিজেকে যুবলীগ নেতা পরিচয়দানকারী ওই ব্যক্তি স্বপ্রণোদিত হয়ে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী স্থানীয় সংসদ সদস্য ডা. এনামুর রহমানকে নানা বিষয়ে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করছেন। কখনও ব্যক্তিগত আবার কখনও রাজনৈতিক বিষয়ে নিয়ে সরকার বিরোধী বিভ্রান্তিকর মন্তব্য করছেন তিনি।

অডিও রেকর্ডটি হুবহু তুলে ধরা হলো-
‘আজিজ (বর্তমান সেনাপ্রধান) সাহেব আমার দাদা শশুরের ক্লোজ বন্ধু, ক্লাসমেট, দোস্তর দোস্ত, বন্ধুর বন্ধু। সেনাপ্রধান, প্রাইম মিনিষ্টার, রাষ্ট্রপতির সাথে আমাদের সম্পর্ক আছে। আমাদের সম্পর্ক নাই, বাংলাদেশে এমন কেউ নাই।’

আশুলিয়ায় নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের উপর হামলার বিষয়ে এই প্রতারক বলেন, ‘মন্ত্রী এনাম সাহেবরে আমি লিখছি- ভাই আপনিতো বললেন এটা খুব খারাপ কাজ হইছে, বেআইনি কাজ হইছে। আপনাদের তাদের নিয়ে টান দেন কেন? উনি টান দেয়, সাহাবুদ্দিন (আশুলিয়া ইউপি চেয়ারম্যান) ধরে রাখে। এই বাইনচোদ এনাম! এই কথাটা একটু বলতে চাইছিলাম- আমি রাজু, আমার কিন্তু এমপি, চেয়ারম্যান, উপজেলা চেয়ারম্যান হওয়ার দরকার নাই। আমি রাজু, আশুলিয়ার একটাই। আর কোন রাজু তৈরি হয় নাই, অনেক আগে থেকেই। আমাকে সাভার-আশুলিয়ার মানুষ আমাকে চেনে। যত সিআইডি, রিকশাওয়ালা, মুচি সবাই চেনে।’

‘এনামের নির্বাচন-টির্বাচন করে দিলাম। আমার এলাকায় ভোটমোট পাইলাম। সিলমিল সহ মাইরা দিলাম সত্য কথা। আশুলিয়া কেন্দ্র আমি দেখছি। এই খানকির পোলায় ৪-৫ মাস আগে আমার ছোট ভাইয়ের বিয়া গেছে, দু:খের কথা ভাই। আমি এনামের বাসায় গিয়া বইসা রইছি দাওয়াত দেওয়ার জন্য। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী, আমি, উ..(এনাম) একসাথে বসছি। কামাল (বর্তমান স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী) ভাই কিন্তু আমার আত্মীয়। কামাল ভাই, আমার দাদার বন্ধুর ছেলে। যাই হোক ভাই দ্যাহেন- উ..(এনাম) করল কি গাড়ীর সামনে বইসা, আমাগো কি প্যারাডো গাড়ি নাই মাদারচোদ। প্যারাডো গাড়িতে আমরা চলি না? গাড়ির মধ্যে বইসা আমারে এনাম কয়- আপনি কে? আমি বললাম যে রাজু ভাই। আমার বাসা আশুলিয়া।’

এছাড়া এই রাজুর বিরুদ্ধে আশুলিয়া ইউনিয়নের বিভিন্ন গ্রামে বাড়িতে বাড়িতে অবৈধ গ্যাস সংযোগ দিয়ে কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগ রয়েছে। শুধু তাই নয় সে গত কয়েক মাস আগে ফেসবুকে একটি স্ট‍্যাটাস দেন বর্তমান আওয়ামী লীগ সরকার ব্যর্থ সরকার এই সরকারের পদত্যাগ করা উচিত। এছাড়া পরিবেশ দূষণের অভিযোগে পরিবেশ অধিদপ্তর সাভার ও আশুলিয়ায় অবৈধ ইটভাটা বন্ধ করে দিলে তিনি আমিনবাজার এলাকায় সরকারের বিরুদ্ধে একটি মানববন্ধনে অংশ গ্রহন করে বর্তমান সরকারের পদত্যাগ দাবি করেন।

অডিওটি ভাইরাল হওয়ার পর স্থানীয় সংসদ সদস্য ও দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী ডা.এনামুর রহমান এই রাজুর বিরুদ্ধে আইন শৃঙ্খলা বাহিনীকে ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশ দেন ও তার বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ করার জন্য বলেন। সাভার উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মঞ্জুরুল আলম রাজীব বলেন এই অবৈধ গ্যাস সংযোগকারীর বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

অন‍্যদিকে, এবিষয়ে সাভার উপজেলা ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান এসোসিয়শনের সভাপতি পারভেজ দেওয়ান ও সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ ফখরুল আলম সমর বলেন কথিত এই যুবলীগ নেতার বিরুদ্ধে সাভার উপজেলার ১২ টি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানরা মামলা দায়ের করবেন বলে জানান। কথিত যুবলীগ নেতা রাজুর বাড়ি আশুলিয়ার চাঁনগাঁও এলাকায় সে চার বছর আগে থেকেই অবৈধ গ্যাস সংযোগ দিয়ে নিজ এলাকায় একটি অট্টলিকা বাড়ি নির্মাণ করেছেন।
এঘটনায় নিজের অপকর্ম আড়াল করতে গত শুক্রবার নিজ এলাকায় কিছু লোকদেরকে নিয়ে এক লোক দেখানো সংবাদ সম্মেলন করে নিজের অপকর্ম ঢাকার চেষ্টা করেন ও বলেন তার কথা বিকৃত করে একটি মহল ফেসবুকে অডিও রেকর্ড বের করেছেন।
আশুলিয়া পুলিশ সুত্র জানায় অডিও রেকর্ডটি যাচাই বাছাই করেই মামলা দায়ের করা হয়েছে।