বিদ্যালয়ে নজরুলের কবিতায় প্রথম হলো গালিব হাসান রওনক

0
80

বিশেষ প্রতিবেদক : বর্ণাঢ্য আয়োজনে পাবনায় শুরু হওয়া তিন দিন ব্যাপী জাতীয় নজরুল সম্মেলন ও আট দিন ব্যাপী জেলা বইমেলার অংশ হিসেবে জেলার বিভিন্ন বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের মাঝে ছিল সাজ সাজ রব। গত ২৬ শে এপ্রিল শুক্রবার সকাল ১১টায় পাবনা শহরের স্বাধীনতা চত্বরের সামনে থেকে র‌্যালী বের হয়ে শহরের প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে এডওয়ার্ড কলেজ মাঠে ফিতা কেটে, বেলুন ও পায়রা উড়িয়ে অনুষ্ঠানটির উদ্বোধন করেন সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের ভারপ্রাপ্ত সচিব ড. আবু হেনা মোস্তফা কামাল এনডিসি।

পাবনা জেলার ১০টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান থেকে বাছাইকৃত শিক্ষার্থীদেরকে নিয়ে নজরুল বিষয়ক রচনা, আবৃত্তি, সঙ্গীত ও নৃত্য প্রতিযোগিতারও ব্যবস্থা গ্রহন করা হয়। এই পর্যায়ে অংশগ্রহনকারীদের মাঝ থেকে ১২০ জনকে পুরস্কৃত করা হবে বলে সংশ্লিষ্ঠ সূত্রে জানা গেছে।

১২০ বছরের পুরাতন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান রাধানগর মজুমদার একাডেমি স্কুল এন্ড কলেজের ক্ষুদে শিক্ষার্থীদের মাঝেও ছিল এই প্রতিযোগিতায় অংশ গ্রহনের উল্লাস। তাই শুধু উল্লাসই নয় সেটাকে বিজয়ে পরিনত করতে সক্ষম হলো পাবনা রাধানগর মজুমদার একাডেমী এন্ড কলেজ’র ৭ম শ্রেণির ছাত্র খন্দকার গালীব হাসান রওনক নজরুল ইসলামের “মানুষ” কবিতা টি আবৃতি করে। অংশগ্রহন করা শিক্ষার্থীদের মাঝ থেকে ছিনিয়ে নিলো প্রথম স্থান।

আলাপচারিতায় কবিতায় স্কুল ভিত্তিক প্রথম স্থান অধিকার করা খন্দকার গালীব হাসান রওনক এর মা ফাওজিয়া হাসান বলেন, আমি আমার জানার গন্ডিতেই ছেলেকে কবিতা আবৃতির জন্য প্রস্তুত করেছি। নিজেও কবিতা খুব ভালবাসি। মাঝে মাঝে সংসারে ব্যস্ততার ফাকে সুযোগ মিলে গেলে নজরুলের দু চারটে লাইন আবৃত্তি করি। সেটা নিছকই নিজের ভালগার জন্য। আমার ছেলেও আমার কাছ থেকে যতটুকু শিক্ষা পেয়েছে তাতেই আজ ওর এই সফলতা।

মফস্বলের একটি ছোট শহরে থেকে সংসার জীবনের আবদ্ধতার মাঝেও আপনার এই ভাললাগার কি এমন উৎস? এমন প্রশ্নের জবাবে ফাওজিয়া হাসান বলেন, আমার পারিবারিক পরিবেশ আমাকে মনের দিক থেকে অনেক, অনেক বড় করে তুলেছে। তাই আমি আজ আমার ছেলেকে সামান্য কিছ শেখাতে পেরেছি। আমার পরিবারের সকল সদস্য আমাকে অনেক কিছু করবার উৎসাহ যোগায়। শিশুদের মানুষিক বিকাশে এমন সুন্দর পারিবারিক পরিবেশ আমাদের দেশের প্রতিটি ঘরে ঘরে তৈরী হোক এটাই আমার প্রত্যাশা।

ছেলের সাফল্যে পিতা খন্দকার মনিরুল হাসান বলেন, ওর আজকের এই সাফল্য শুধু আমাকে নয়, আমার পরিবারকে নয় বরং গোটা বিদ্যালয়কে করেছে উজ্জিবীত। তিনি আরো বলেন ওকে সাহস যুগিয়েছে বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীসহ শিক্ষকগণ। তাদের সবার প্রতি আমি কৃতজ্ঞ।

উল্লেখ্য, আট দিন ব্যাপী জেলা বইমেলা সরকারি ছুটির দিন সকাল ১১টা থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত এবং অন্য দিন বিকেল ৩টা হতে রাত ৯টা পর্যন্ত চলবে। প্রতিদিন সন্ধ্যা ৬টা থেকে স্থানীয় ও ঢাকার বিশিষ্ট শিল্পীরা বইমেলায় সঙ্গীত ও নৃত্য পরিবেশন করবেন।