সোমবার, ফেব্রুয়ারি ২৬, ২০২৪
More
    Homeপ্রধান সংবাদশেখ হাসিনার ট্রেনবহরে গুলি: ৯ জনের ফাঁসি, ২০ জনের যাবজ্জীবন

    শেখ হাসিনার ট্রেনবহরে গুলি: ৯ জনের ফাঁসি, ২০ জনের যাবজ্জীবন

    প্রতিনিধি পাবনা: ২৫ বছর আগে বিএনপি সরকারের সময় বিরোধীদলীয় নেতা ও আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনাকে বহনকারী ট্রেনে গুলির মামলার রায় ঘোষণা করা হয়েছে আজ। রায়ে ৯ জনকে ফাঁসি ও ২০ জনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের আদেশ দিয়েছেন আদালত।

    বুধবার (৩ জুলাই) পাবনার অতিরিক্ত দায়রা জজ রোস্তম আলী এই রায় ঘোষণা করেন।

    এর আগে রোববার মামলার সাক্ষ্য ও জেরা শেষে একই বিচারক ৩০ আসামির জামিন বাতিল করে তাদের কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন।

    আদালতে আজ রাষ্ট্রপক্ষে যুক্তিতর্ক উপস্থাপন করেন পাবনার পিপি অ্যাডভোকেট আক্তারুজ্জামান মুক্তা ও অ্যাডভোকেট গোলাম হাসনাইন। আসামি পক্ষে শুনানি করেন অ্যাডভোকেট নূরুল ইসলাম গেদা ও অ্যাডভোকেট সনৎ কুমার সরকার। পলাতক আসামিদের পক্ষে শুনানি করেন অ্যাডভোকেট এ কে এম শামসুল হুদা।

    পরে পাবনার জজ আদালতের পিপি আখতারুজ্জামান মুক্তা বলেন,  ৩৮ জনের সাক্ষ্য নিয়ে আদালত বিচারকাজ শেষ করেছে। তারা যে সাক্ষ্য দিয়েছেন তাতে হামলার ঘটনায় আসামিদের সংশ্লিষ্টতা প্রমাণিত হয়েছে। বুধবার আদালত যে রায় ঘোষণা করবে তাতে আসামিদের সর্বোচ্চ শাস্তি হবে বলে আশা করছি।”

    তবে আসামিপক্ষের আইনজীবী মাসুদ খন্দকার বলেন,  “এ মামলায় উচ্চ আদালতে লিভ টু আপিল চলমান। এরপরও রায়ের দিন ঠিক হয়েছে। কোনো সাক্ষীই সুনির্দিষ্টভাবে অভিযুক্ত আসামিরাই যে বোমাবাজি ও গুলি করেছে তা বলেননি। রাজনৈতিক প্রভাবমুক্ত রায় হলে অবশ্যই আসামিরা খালাস পাবেন।”

    এ মামলার প্রধান আসামি ঈশ্বরদী পৌর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক জাকারিয়া পিন্টু, পৌর বিএনপির সাবেক সভাপতি ও ঈশ্বরদী পৌরসভার সাবেক মেয়র মকলেছুর রহমান বাবলু এবং বিএনপি নেতা হুমায়ুন কবীর দুলাল আদালতে হাজির না হওয়ায় তাদের বিরদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারির আদেশ দিয়েছেন বিচারক।

    ১৯৯৪ সালের ২৩ সেপ্টেম্বর তত্ত্বাবধায়ক সরকারের দাবিতে ট্রেনমার্চ করার সময় পাবনার ঈশ্বরদী রেলস্টেশনে তখনকার বিরোধী দলীয় নেতা শেখ হাসিনাকে বহনকারী ট্রেনের বগি লক্ষ্য করে গুলি করা হয়।

    তবে ওই ঘটনায় প্রাণে বেঁচে বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সে সময় সরকারের প্রধানমন্ত্রী ছিলেন বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া।

    হামলার ঘটনায় রেলওয়ে পুলিশ বাদী হয়ে ১৩৫ জনকে আসামি করে মামলা করলেও বিএনপির আমলে তদন্ত এগোয়নি। ১৯৯৬ সালে আওয়ামী লীগ সরকার গঠন করলে তদন্ত গতি পায়। তদন্ত শেষে পুলিশ মোকলেছুর রহমান বাবলু, জাকারিয়া পিন্টুসহ ৫২ জনের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দেয়।

    আসামিদের মধ্যে গত ২৫ বছরে ওসিয়া, আলী আজগর, খোকন, তুহিন ও আলমগীর মৃত্যুবরণ করেন। হাজতে পাঠানো আসামিদের মধ্যে রয়েছেন- পৌর বিএনপির সাবেক সভাপতি একেএম আক্তারুজ্জামান, সাবেক সাধারণ সম্পাদক শামসুল আলম, উপজেলা বিএনপির সাবেক সাধারণ সম্পাদক আলাউদ্দিন বিশ্বাস, সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান নেফাউর রহমান রাজু, সাবেক ভিপি রেজাউল করিম শাহীন, বিএনপি নেতা আলমগীর হোসেন আলম, আজমল হোসেন ডাবলু, মাহাবুবুর রহমান পলাশ, ইসলাম হোসেন জুয়েল, নুরুল ইসলাম আক্কেল, যুবদল নেতা আজিজুর রহমান শাহীন, সাবেক ছাত্রনেতা আনোয়ার হোসেন জনি, সেলিম আহমেদ, শহিদুল ইসলাম অটল, আব্দুল জব্বার, শাহ আলম, বরকত হোসেন, এনামুল কবীর, হাফিজুর রহমান মুকুল, মুক্তার হোসেন, লিটন, রিপন, সিমুয়া।

     

    Javed Mostafa
    Javed Mostafa
    Javed Mostafa is a Bangladeshi journalist and social activist. He has been a journalist for more than Twenty years
    RELATED ARTICLES

    LEAVE A REPLY

    Please enter your comment!
    Please enter your name here

    Most Popular

    Recent Comments