আরও আকর্ষণীয় করতে বদলে যাচ্ছে টেস্ট ক্রিকেটের নিয়ম

0
26
শেয়ার করে সকল কে জানিয়ে দিনঃ

ক্রাইম অনুসন্ধান ডেস্ক : টেস্ট ক্রিকেটকে  একগুচ্ছ নিয়ম চালু করতে চলেছে আইসিসি। সোমবার টুইট করে এখবর নিজেই দিল বিশ্ব ক্রিকেটের সর্বোচ্চ নিয়ামক সংস্থা। ইতোমধ্যেই জানিয়ে দেওয়া হয়েছে এবার থেকে সাদা জার্সিতে লেখা থাকবে ক্রিকেটারের নাম ও জার্সি নম্বর। তবে এর সঙ্গেই যুক্ত হচ্ছে আরও নানা মজাদার নিয়ম। চলতি বছর জুলাইয়ে শুরু বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপ। সে কথা মাথায় রেখেই নাকি নতুন নিয়মের কথা ঘোষণা করল আইসিসি।

টি-টোয়েন্টির রমরমার যুগে ক্রমেই জৌলুস হারাচ্ছে টেস্ট ক্রিকেট। বিশেষ করে উঠতি ক্রিকেটারদের কাছে টেস্টের গুরুত্ব কমে যাচ্ছে। সহজে নাম কামানোর তাগিদে টি-টোয়েন্টির দিকেই ঝুঁকে তাঁরা। কিন্তু ‘জেন্টলম্যানস গেম’-এ টেস্টের ঐতিহ্যই তো প্রাচীনতম। টেস্ট ছাড়া ক্রিকেটকে তো ভাবাই যায় না। আর তাই বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের আগেই নতুন নিয়ম চালু করে এর জনপ্রিয়তা বাড়াতে উদ্যোগী আইসিসি। তো কী কী পরিবর্তন আসছে বলে জানিয়েছে সর্বোচ্চ নিয়ামক সংস্থা?

প্রথমত, টেস্টের জার্সিতে নম্বরের উপর ক্রিকেটারের যে নামটি উল্লেখ থাকবে তা আসলে হবে সেই খেলোয়াড়ের ইনস্টাগ্রাম হ্যান্ডেলের নাম। এভাবে ক্রিকেটারদের সোশ্যাল মিডিয়ায় চিনতে আরও সুবিধা হবে বলেই মত আইসিসির।

দ্বিতীয়ত, টেস্ট শুরুর আগে আর টসের জন্য কয়েনের ব্যবহার হবে না। তথাকথিক ট্র্যাডিশন ভেঙে টুইটারে ভোটের মাধ্যমেই ঠিক হবে কোন দল আগে ব্যাট অথবা বল করবে। অর্থাৎ বাড়ি বসে ক্রিকেটপ্রেমীরাও সরাসরি যুক্ত হতে পারবেন ম্যাচের সঙ্গে।

তৃতীয়ত, এবার থেকে সম্প্রচারকারী চ্যানেল ম্যাচ চলাকালীন মাঠে একজন ধারাভাষ্যকার পাঠাতে পারবেন, যিনি সেখান থেকে সরাসরি ম্যাচ বিশ্লেষণ করতে পারবেন।

চতুর্থত, বেসবলের ডাবল প্লের মতো নিয়মও নাকি ঢুকছে ক্রিকেটে। কীরকম? ধরুন, কোনও ব্যাটসম্যান ক্যাচ আউট হলেন, তার পরও ফিল্ডিং টিম অন্য ব্যাটসম্যানকে সেই বলেই রানআউট করার অনুমতি পাবে।

এখানেই শেষ নয়। আরও আছে। দিন-রাতের ম্যাচে সন্ধের পর যা রান হবে তা ডাবল হিসেবে গণ্য হবে। অর্থাৎ, কেউ যদি ছক্কা হাঁকান, তবে এক বলে তিনি ১২ রান করেছেন বলে ধরা হবে। এছাড়া, টেনিসের মতো নো-বলকে ‘ফল্ট’ এবং ডট বলকে ‘এস’ বলা হবে।

তবে আইসিসির এমন নিয়মাবলি দেখে অনেকেই বলতে শুরু করেছেন এপ্রিল ফুল উপলক্ষে নেহাতই মজা করেছে নিয়ামক সংস্থা। মাইকেল ভনও টুইট করে বলছেন, “এমন নিয়ম পড়ে বোঝাই যাচ্ছে আইসিসি আমাদের বোকা বানাচ্ছে। কিন্তু এমনটা হলে বেশ ভালই হত।” তবে এর মধ্যে আদৌ কোনও নিয়ম সত্যিই চালু হবে কিনা, তা এখনও নিশ্চিত করেনি আইসিসি।


শেয়ার করে সকল কে জানিয়ে দিনঃ