ধামরাইয়ে শতবর্ষি বৃদ্ধের সাংবাদিক সম্মেলনের বিরুদ্ধে রিদওয়ানের বক্তব্য।

0
140
শেয়ার করে সকল কে জানিয়ে দিনঃ

আলোর যুগ প্রতিনিধি, ধামরাই (ঢাকা)
বসতভিটা না দেয়ায় ঢাকার ধামরাইয়ে মানিকগঞ্জের শতবর্ষী বৃদ্ধ জহিরউদ্দিন নিজ ঔরশজাত সন্তানের বিরুদ্ধে জনাকীর্ণ এক সংবাদ সম্মেলনে অভিযোগ করেছেন ।জায়গা জমি ও বসতভিটা লিখে দিতে রাজি না হওয়ায় বৃদ্ধ পিতাকে বাড়ী থেকে বিতাড়িত করেছে তার সন্তান। সঙ্গে ওই বৃদ্ধের বসবাসের ঘরে তালা লাগিয়ে দিযা হয়েছে। ঘটনাটি ঘটেছে শুক্রবার মানিকগঞ্জ জেলার সদর থানার কুমুতপুর গ্রামে। তবে এই ধরনের সংবাদের প্রতিবাদ দিয়েছেন জনৈক রিদওয়ান হোসাইন নামক এক ব্যক্তি। তিনি বলেন,সংবাদে ঊল্লেখিত বাড়ী থেকে বিতাড়িত বৃদ্ধ জহিরউদ্দিন ধামরাইয়ের খান পল্লীতে আয়োজিত ওই সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্যে বলেন,শফিউদ্দিন(৪৫) ও জাহনারাকে(৫০)রেখে আমার প্রথম স্ত্রী মারা যাওয়ার পর আমি দ্বিতীয় বিয়ে করি। আমার দ্বিতীয় ঘরেও মাসুদ রানা(২২) ও জহুরা আক্তার(২৪)নামে দ্ইু সন্তান রয়েছে। রিদওয়ান বলেন তার এই বক্তব্য মিথ্যা ভিত্তিহীন।
সংবাদ সম্মেলনে তার বড় ছেলে শফিউদ্দিনের কাছে বসত ভিটা ও চাষের সমস্ত জায়গাজমি তার নামে লিখে বিষয়টিও সম্পূর্ণ অসত্য বলে রিদওয়ান আরো জানান, উপায়ন্তর না দেখে ধামরাইয়ের খান পল্লীতে এসে জহিরউদ্দিনের আশ্রয় নেয়া এবং খান পল্লী থেকেই তার চিকিৎসার ব্যবস্থা করানোর বিষয়টিরও কোন সত্যতা নেই।
রিদওয়ানের পূর্ণ প্রতিবাদ লিপিটি হুবহু ছাপানো হলো:-
***************************************
আমি প্রায় নিয়মিত আলোরযুগ পত্রিকাটি পড়ি। কিন্তু আজ আমি হতবাক হয়ে গেছি যেখানে আমার নিজ গ্রামের কিছু লোক এই পত্রিকায় কিছু মিথ্যা ও বানোয়াট খবর প্রচার করেছে। এই পত্রিকায় যে কথিত বয়স্ক ভিকটিম এর কথা বলা হয়েছে, তিনি আমার আপন নানা। আমি চাইনা আমার নাম টা প্রচার হোক। যে বৃদ্ধের কথা বলা হয়েছে তার নাম জহিরুদ্দিন বেপারি। তিনি আমার নানি অর্থাৎ তার প্রথম স্ত্রি এর উপর তিনি জীবিতকালে নানা অত্যাচার করতো, যার চাক্ষুস প্রত্যক্ষদর্শী আমার মা এবং খালা রা রয়েছে। তার প্রথম স্ত্রী তথা আমার নানি মারা যাওয়ার পর তার অমত থাকার পরও তাকে দ্বিতীয় বিয়ে দেয় আমার মা আর মামা রা। তার দ্বিতীয় বিয়ের পর ২ সন্তান হয়। কিন্তু তার দ্বিতীয় স্ত্রীর সন্তান বড় হওয়ার সাথে সাথেই তিনি তার প্রথম স্ত্রীর সন্তানদের প্রতি অমানবিক আচরন কর শুরু করে। তাদের সাথে নানা বিষয়ে ঝগরা থেকে শুরু করে এমন কি আমার মা এবং খালা এর গায়ে হাত তুলতেও দিধা করেননি তিনি। তিনি তার দ্বিতীয় স্ত্রীর সন্তান দের নিয়ে যে জায়গায় থাকতো সেটা আমার মৃত নানির জায়গা। তিনি আমার নানির জমি বিক্রি করতো আর সংসার চালাতো। সে তার মেয়ে বা তার ছেলের কোন খোজ খবর রাখতো না। সে লুকিয়ে তার প্রথম স্ত্রীর জমি তার সন্তান দের অধিকার হরন করে তার দ্বিতীয় স্ত্রীর সন্তান দের লিখে দেয়। সেটা তিনি লুকিয়ে রাখে। সেটা ফাস হবার পর আমার মামা ( যার নামে বিতারিত করার অভিযোগ দেওয়া হয়েছে)
তিনি হতবাক হয়ে যান। তিনি গ্রামে গিয়ে তার বাবার কাছে এই সত্যতা জানার জন্য যান। কিন্তু তাকে দেখে তার প্রথম স্ত্রী ও তিনি খুবি নিন্দনীয় ব্যবহার শুরু করে। এমন কি তার নিজের মায়ের বাড়ি থেকে তাকে তাড়িয়ে দেওয়া তথা লাঠি দিয়ে তেরে মারতে যান। সে লাঠি তার স্ত্রী হাত থেকে হাত থেকে নিতে গিয়ে বাশের লাঠিটা দিয়ে হাত কেটে যায়। কিন্তু তারা আমার মামার নামে মিথ্যা অভিযোগ দেয় যে সে মেরে তার বাবার হাত কেটে ফেলেছে। আপনাদের নিউজ এ জানানো হয়েছে যে তার আগের স্ত্রীর ২ জন সন্তান, অথচ তার আগের ঘরের স্ত্রীর সন্তান ছিল ৬ জন তার মধ্যে ৩ জন এখন এই দুনিয়ায় নেই। আমি অবাক হয়ে যাচ্ছি যে আপনারা সত্য না জেনে কিভাবে এমন নিউজ দিতে পারেন অন্যের নামে। এতে একজন সমাজের দৃষ্টি কতটা নিচু হয়ে যায় সেটা কি আপনাদের দেখার বিষয় না? আপনাদের ভিকটিম এখন ও তার নিজ বাড়িতেই রয়েছে। আপনারা গিয়ে দেখে আসতে পারেন। আমি চাইনা অন্য কোন নিউজ বা মিডিয়ার শরনাপন্ন হতে। আশা করি আপনার অতি দ্রুত সম্ভব এ মিথ্যা নিউজ মুছে ফেলবেন, ভাল করে জেনে সত্য নিউজ প্রচার করবেন। নতুবা আমার আইনের ব্যবস্থা নেওয়া ছাড়া কিছুই করার থাকবে না। আপনাদের সহায়তা কামনা করছি।
প্রেরক
রিদওয়ান হোসাইন
———————-//////////////////////———————-
তিনি এই প্রতিবাদ লিপিতে ‘সাপ্তাহিক আলোর যুগ’ পত্রিকা বলে কেন উল্লেখ করেছেন এবং কি কারনে তা বোধ গম্য হয় নি। নিউজটি প্রকাশ হয়েছে www.alorjugnews24.com er news portal web site.
তবে এ নিউজ ও এর সাংবাদিক সম্মেলনের পুরো বিষয়টি নিয়ে প্রতিবেদক শামীম খান বলেন, প্রতিবাদ কারীর পরিচয় ও সাংবাদিক সম্মেলনের বিষয়টি আরো যাচাই বাছাই করে তা পুনরায় নিউজ পোর্পটালে ও পর্ত্রিকায় প্রকাশ করা হবে।তবে তিনি জানান এই ঘটনায় ধামরাই থানায় কয়েকজনকে আসামী করে অভিযোগ দেওয়া হয়েছে।যা পুলিশ তদন্ত করছে। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত পুলিশ বৃদ্ধকে নাজেহাল করার ঘটনায় কোন ব্যবস্থা নেয় নি বলে জানা গেছে।


শেয়ার করে সকল কে জানিয়ে দিনঃ