র‍্যাবের অভিযানে আন্তঃজেলা ডাকাতদলের ১০ জন গ্রেফতার, আশুলিয়ায় বন্ধুর হাতে বন্ধু খুন

0
48
শেয়ার করে সকল কে জানিয়ে দিনঃ


আলোর যুগ স্টাফ রিপোর্টার (শামীম খান), সাভার:

সাভার উপজেলার আশুলিয়া এলাকায় ডাকাতির প্রস্তুতি নেয়াকালে র‌্যাপিড অ্যাকশান ব্যাটালিয়ানের(র‌্যাব) সদস্যদের হাতে গ্রেপ্তার হয়েছে আন্তঃজেলা ডাকাতদলের ১০ সদস্য। তাদেরর কাছ থেকে বিপুল পরিমাণ দেশীয় অস্ত্র উদ্ধার হয়েছে। তাদেরকে আশুলিয়া থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে। গতকাল সিপিসি-২এর পুলিশ পরিদর্শক মুহাম্মদ জাহিদ হাসান এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন এক প্রেস প্রিফিংয়ের মাধ্যমে।
আন্তঃজেলা ডাকাতদলের গ্রেফতারকৃত সদস্যরা হলো,ঢাকা জেলার সাভার উপজেলার আশুলিয়া থানার জামগড়া মধ্যপাড়া এলাকার মৃত মোঃ রাজিউল্লাহ সরকারের ছেলে মোঃ তাজিবর রহমান সরকার(৬৫),একই এলাকার মোঃ জনি সরকার((২৫),মোঃ মনির হোসেন সরকার বাবু(১৮)গাজীপুর জেলার কাশিমপুর থানার শুয়াবাড়ী গ্রামের মোঃ কামাল হোসেনের ছেলে মোঃ মুন্না মিয়া( ২২),গাইবান্ধা জেলার গোবিন্দগঞ্জ থানার আদর্শ গ্রামের মোঃ হানিফ আলী শেখের ছেলে মোঃ আমির হোসেন বাবু(২০) ও আশুলিয়া থানার ইয়ারপুর ইউনিয়নের তাজপুর গ্রামের মোঃ আলমগীর হোসেন সরকারের ছেলে মোঃ জিসান সরকার(২৪),একই এলাকার মোঃ মানিক মিয়ার ছেলে মোঃ আমিন মিয়া(২১)পাবনা জেলার বেড়া থানার চাচাপাড়ি ইউনিয়নের জগন্নাথপুর গ্রামের মোঃ আবুল কাশেম মোল্লার ছেলে মোঃ কামরুল ইসলাম মোল্লা(২৪),খুলনা জেলার সোনাডাংগা থানার ময়লাপোতা হেলাতোলা গ্রামের মৃত কবির হোসেনের ছেলে মোঃ রাজু মিয়া(১৮)এবং মানিকগঞ্জ জেলার সেঙ্গাইর থানার ধরলা গ্রামের মৃত আব্দুস মোঃ সোবহানের ছেলে মোঃ সেলিম রেজা আহাম্মেদ(২৯)।
জাহিদ হাসান আরো জানান,রাতে গোপন খবরের ভিত্তিতে জানতে পারি জামগড়া মধ্যপাড়া এলাকর একটি বাড়ীতে ডাকাতি করার জন্য আন্তঃ জেলা ডাকাতদলের সদস্যরা সমবেত হচ্ছে। জিজ্ঞাাবাদ শেষে আন্তঃজেলা ডাকাতদলের সদস্যরা সংঘবদ্ধভাবে ডাকাতি করার কথা স্বীকার করেছে। তাদের দেহ তল্লাশী করে রামদা,কিরিচ,তলোয়ার,দা,চাপাতি ,চাকু,বাইশাস ও ফলাসহসহ দেশীয় ১৫টিঅস্ত্র এবং ১৫টি মোবাইল ফোন জব্দ করা হয়েছে। তাদেরকে আশুলিয়া থানা পুলিশের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। এব্যাপারে আশুলিয়া থানায় একটি মামলা দায়ের হয়েছে।
এব্যাপারে আশুলিয়া থানার ওসি তদন্ত পুলিশ পরিদর্শক মোঃ জিয়াউল হক জানান,র‌্যাব-৪ াের সদস্যরা গোপন খবরের ভিত্তিতে ডাকাতির প্রস্তুতি নেয়াকালে জামগড়া মধ্যপাড়া এলাকা থেকে দেশীয় অস্ত্রসহ আন্তঃজেলা ডাকাতদলের ১০সদস্যকে গ্রেফতার করেছে।

বন্ধুর হাতে বন্ধু খুন,ঘুষের ৯০ হাজার টাকা ফেরত চাওয়ায় বন্ধু খুন।

সাভারের আশুলিয়ার কাঠগড়ার তালাবদ্ধ ঘর থেকে উদ্ধার হওয়া সেই মরদেহ পাওয়ার পর হত্যার রহস্য উদঘাটন করে ৩ হত্যাকারীকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

গত বুধবার রাতে গাজীপুরের কোনাবাড়ি এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতারকৃতরা সবাই একে অপরের বন্ধু ও একই জেলায় বাড়ি বলে জানা গেছে।গ্রেফতারকৃতরা হলেন- পাবনা জেলার সাথিয়া থানার ধুলাউড়ি গ্রামের মাহাতাব ব্যাপারীর ছেলে সোহেল (২২), একই এলাকার আব্দুর রাজ্জাকের ছেলে আব্দুল আলীম (১৭) ও খালেকের ছেলে জিহাদ (১৮)। এর আগে ২৩মে কাগড়া এলাকার শামসুন্নাহারের একটি ঘর থেকে খুন হওয়া হতভাগ্য ওই যুবকের মরদেহ উদ্ধার করেছির আশুলিয়া থানা পুলিশ।
চাকরি দেয়ার নামে হাতেিয় নেয়া টাকা ফেরত চাওয়ায় ওই যুবককে খুন করা হয়েছে বলে নিশ্চিত করেছে আশুলিয়া থানা পুলিশ। খুন হওয়া ওই যুবকের নাম মোঃ আলামিন হোসেন। নিহত আল-আমিন পাবনা জেলার বেড়া থানার মঞ্জু মিয়ার ছেলে। খুন হওয়া ওই যুবক ও তার হত্যাকারিরা আশুলিয়া থানার কাঠগড়া এলাকায় শামসুন্নাহারের বাড়ি ভাড়া নিয়ে থাকতো। তারা একে অপরের বন্ধু। গত বৃহস্পতিবার (২৭ মে) দুপুরে তাদের আদালতে পাঠানো হয়েছে বলে নিশ্চিত করেছে আশুলিয়া তাণা পুলিশি সূত্র।
পুলিশ জানায়, গ্রেফতারকৃত হত্যাকারিদের প্রথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জানা গেছে,খুন হওয়া চাকুরি প্রত্যাশী মোঃ আলামিনরাহোসেন তার হত্যাকারি ওই তিনবন্ধুসহ ৪জনে মিলে আশুলিঢয়া থানার কাঠগড়া শামসুন্নাহারের বাড়ীতে ভাড়া থাকত। তারা ৪জনেই একই এলাকার বাসিন্দা। সোহেল নামের বন্ধু খুন হওয়া আলাামিনকে আকর্ষনীয় বেতনে চাকুরি দেয়ার কথা বলে তার কাছ থেকে ৯০ হাজার টাকা হাতিয়ে নেয়। কথামত চাকুরি দিতে না পারায় আলাামিন তার প্রদেয় টাকা ফেরত চায় এবং সোহেলকে বেশ অপমান অপদস্তুও করে। এতে সোহেল তার প্রতি ভীষণ ক্ষিপ্ত হয়ে যায় এবং তাকে দেখে নেবে বলে হুমকী প্রদান করে। এরই জের ধরে ২৩ মে রাতে সোহেলসহ তিন বন্ধু মিলে আরামিনকে ঘরের ভেতর নৃশংসভাবে হত্যা করে ঘরের দরজায় তালাবদ্ধ করে পালিয়ে যায়। পরে বাড়ীর মালিকের সন্দেহ হলে তিনি ঘরের তালা ভেঙে খুন হওয়া ওই যুবকের মরদেহ দেখতে পেয়ে আশুলিয়া থানা পুলিশকে বিষয়টি অবহিত করা হলে ওই মরদেহটি উদ্ধার করা হয়। বুধবার রাতে সন্তেহভাজন খুনিদের মোবাইল ফোন ট্রেকিং করে গাজীপুর জেলার কোনাবাড়ী থেকে গ্রেফতার করা হয় ওই তিনজনকে।
এ বিষয়ে আশুলিয়া থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) মোঃ ফজর আলী বলেন, মুলত টাকার জন্য বন্ধুকে তারই অপর বন্ধুরা খুন করে তারব্যবহৃত মোবাইল ফোন নিয়ে পালিয়ে যায়। তথ্য প্রযুক্তির মাধ্যমে সেই মোবাইলের অবস্থান শনাক্তের ওই তিন খুনি বন্ধুকে গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতারকৃত ওই খুনিদের জ্ঞিাসাবাদ শেষে পাঠানো হয়েছে।


শেয়ার করে সকল কে জানিয়ে দিনঃ