মানিকগঞ্জে শুরু ২ শত বছরের ঐতিহ্যবাহী নিমাইচাঁদের মেলা

0
19
শেয়ার করে সকল কে জানিয়ে দিনঃ

মোঃ শরিফুল ইসলাম, মানিকগঞ্জ প্রতিনিধি: ব্যাপক উৎসাহ-উদ্দীপনার মধ্য দিয়ে মানিকগঞ্জে শুরু হয়েছে ২’শত বছরের ঐতিহ্যবাহী নিমাইচাঁদের পুণ্যস্নান উৎসব ও মেলা।

আজ মঙ্গলবার ( ১৬ ই এপ্রিল ) মানিকগঞ্জ সদর উপজেলার ভাড়ারিয়া ইউনিয়নাধীন কৃষ্ণপুর গ্রামে বসেছে ১০ দিন ব্যাপী এ মেলা । ভোরে থেকে কালিগঙ্গা নদীতে নিমাই চাঁদের স্নানের মধ্য দিয়ে শুরু হতে থাকে এ মেলা।

তীর্থ যাত্রীরা পুণ্য লাভের আশায় প্রতিবছরের মতো এবারও জেলা ও জলার বাহির থেকে কয়েক হাজার পুণ্যার্থী সমবেত হতে থাকেন বালিরটেক বাজার সংলগ্ন কালিগঙ্গা নদীর তীরে । স্নান শেষে সকল ভক্তবৃন্দদের মাঝে প্রসাদ বিতরন করা হয়।

ভক্তবন্দৃদের ১৫ দিন আগে থেকেই এ এলাকায় বাড়ি বাড়ি শুরু হয় বিভিন্ন প্রস্তুতির পালা। দূর দুরান্ত থেকে আসা আত্মীয়-অনাত্মীয়তে বাড়ি ভরে যায়। এ অঞ্চলে এটি সবচেয়ে বড় উৎসব। আর সকল সনাতন ধর্মাবলম্বীও এ উৎসবে উপস্থিত হয়।

আয়োজক কমিটির সভাপতি সুভাষ দেবনাথ বলেন, প্রতি বছরের মত এবারও বেশ আনন্দ উৎসবের মধ্যদিয়ে শুরু হয়েছে ২’শত বছরের ঐতিহ্যবাহী নিমাইচাঁদের পুণ্যস্নান উৎসব।

দুরদূরান্ত থেকে অনেক তীর্থ যাত্রীরা পুণ্য লাভের আশায় প্রতিবছরের মতো এবারও জেলা ও জলার বাহির থেকে কয়েক হাজার পুণ্যার্থী সমবেত হয়েছে ।
‘আজ থেকে প্রায় ২’শ৩ বছর আগে পদ্মা নদীর ওপারে ফরিদপুর নামক স্থানে জনৈক কাঠমিস্ত্রি তার বাড়িতে একটি নিমগাছ লাগিয়েছিলেন।

প্রতিদিন তিনি নিমগাছের তলা পরিষ্কার করে রাখতেন। গাছ যখন বড় হয়, তখন একদিন ওই গাছের ভেতর থেকে দৈববাণী শুনতে পান মিস্ত্রী। গাছের কান্ডের অংশ দিয়ে মূর্তির মতো করে নিমাইচাঁদ নামক কাঠের দেবতা তৈরি করার আদেশ পান তিনি। তখন মিস্ত্রী দৈববাণী মোতাবেক কাঠের দেবতা তৈরি করেন।

নিয়মিত পূজা অর্চনা করতে থাকেন । ’’ সেই থেকে পর্যায়ক্রমে শুরু হয়ে আসছে নিমাইচাঁদের মেলা এবং কালিগঙ্গা নদীতে ২ বৈশাখ শুরু হয় নিমাইচাঁদের স্নান। এ স্নান সনাতন ধর্মালম্বীদের কাছে পবিত্র স্নান হিসেবে পরিগণিত হয়ে আসছে ।


শেয়ার করে সকল কে জানিয়ে দিনঃ