ফাইজারের টিকা অনুমোদন দিলো বাহরাইন

0
9
শেয়ার করে সকল কে জানিয়ে দিনঃ


আলোর যুগ ডেস্ক:-
যুক্তরাজ্যের পর দ্বিতীয় দেশ হিসেবে ফাইজার-বায়োএনটেকের উদ্ভাবিত করোনাভাইরাসের টিকা ব্যবহারের অনুমোদন দিয়েছে মধ্যপ্রাচ্যের দেশ বাহরাইন। শুক্রবার দেশটির স্বাস্থ্য নিয়ন্ত্রক কর্তৃপক্ষ এই অনুমোদন দেয়। করোনায় আক্রান্তদের জরুরি চিকিৎসার জন্য এ অনুমোদন দিয়েছে দেশটি। কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আল জাজিরা এখবর জানিয়েছে।
ফাইজার ও বায়োএনটেক উদ্ভাবিত করোনাভাইরাসের ভ্যাকসিন বিশ্বের প্রথম দেশ হিসেবে ব্যবহারের অনুমোদন দিয়েছে যুক্তরাজ্য। উৎপাদকদের দাবি পরীক্ষার চূড়ান্ত ধাপে ভ্যাকসিনটি মানুষকে করোনা সংক্রমণ থেকে ৯৫ শতাংশ রক্ষা করতে সক্ষম হয়েছে। ভ্যাকসিনটির ৪ কোটি ডোজের অর্ডার দিয়েছে যুক্তরাজ্য। ইতোমধ্যে ভ্যাকসিনটির প্রথম চালান দেশটিতে পৌঁছে গেছে। হাতে পাওয়ার পর সেগুলোকে একটি অজ্ঞাত স্থানে রাখা হয়েছে। সেখান থেকেই এটি মানুষের ওপর প্রয়োগের জন্য বিভিন্ন হাসপাতালে বিতরণ করার কথা রয়েছে।
বাহরাইনে এখন পর্যন্ত ৮৭ হাজারের বেশি মানুষ করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। এদের মধ্যে মৃত্যু হয়েছে ৩৪১ জনের। আক্রান্তদের মধ্যে ৮৫ হাজারের বেশি ইতোমধ্যে সুস্থ হয়ে উঠেছেন। বাহরাইনের সরকার জানিয়েছে, তারা দ্বীপটিতে ২০ লাখের বেশি করোনা পরীক্ষা সম্পন্ন করেছে।
জরুরি ব্যবহারের অনুমতি দিয়ে বাহরাইনের জাতীয় স্বাস্থ্য নিয়ন্ত্রক কর্তৃপক্ষ (এনএইচআরএ) জানায়, ফাইজার-বায়োএনটেকের টিকাটি উচ্চঝুঁকিপূর্ণ রোগীদের প্রয়োগ করা হবে।
আল জাজিরার খবরে বলা হয়েছে, বাহরাইন কী পরিমাণ ভ্যাকসিন কিনেছে বা কখন এটি প্রয়োগ শুরু হবে সে বিষয়ে এখনও কিছু জানায়নি। টিকাটি উৎপাদক সংস্থা ফাইজারও কোনও মন্তব্য করেনি।
বাহরাইনের জন্য ফাইজারের টিকা পরিবহন ও বিতরণ বড় চ্যালেঞ্জ। মধ্যপ্রাচ্যের দেশটিতে তাপমাত্রা গড়ে ৪০ ডিগ্রি সেলসিয়াস থাকে। কিন্তু ফাইজারের টিকা পরিবহন ও সংরক্ষণ করতে হবে মাইনাস ৭০ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রায়।
খবরে বলা হয়েছে, বাহরাইন টিকা বিতরণে তাদের রাষ্ট্রীয় বিমান সংস্থা গালফ এয়ারের উড়োজাহাজ ব্যবহার করতে পারে। সংযুক্ত আরব আমিরাতের এমিরেটস এয়ারলাইন জানিয়েছে, তারা উচ্চশীতল তাপমাত্রায় করোনা টিকা পরিবহনের জন্য নিজেদের প্রস্তুত করছে।

করোনামুক্ত হতে তিন সপ্তাহের ব্যবধানে ফাইজারের ভ্যাকসিনের দু’টি ডোজ গ্রহণ করতে হবে।
এর আগে বাহরাইন আগেই চীনা প্রতিষ্ঠান সিনোফার্মের উদ্ভাবিত টিকা জরুরি ব্যবহারের জন্য অনুমোদন দিয়েছে। এরই মধ্যে প্রায় ছয় হাজার মানুষ তা গ্রহণ করেছেন। সিনোফার্মের টিকাটি সংযুক্ত আরব আমিরাতেও প্রয়োগ হচ্ছে।

বাহরাইনের এনএইচআরএ প্রধান মরিয়ম আল-জালাহমা বলেন, করোনাভাইরাস মোকাবিলায় ফাইজার-বায়োএনটেকের টিকার অনুমোদন একটি গুরুত্বপূর্ণ অধ্যায় যুক্ত করবে।
জার্মান কোম্পানি বায়োএনটেক জানিয়েছে, ২০২১ সালের মধ্যে টিকার ৫৭ কোটি ডোজ সরবরাহে চুক্তিবদ্ধ হয়েছে। প্রয়োজনে আরও ৬০ কোটি ডোজ সরবরাহের সুযোগ তাদের রয়েছে। তাদের প্রত্যাশা, আগামী বছরের মধ্যে বিশ্বব্যাপী তারা অন্তত ১৩০ কোটি ডোজ সরবরাহ করতে পারবে।


শেয়ার করে সকল কে জানিয়ে দিনঃ