ধামরাইয়ে লকডাউনে ভিপি জমির মাটি লুট, দুটি ভেকুতে অগ্নিসংযোগ

0
58
শেয়ার করে সকল কে জানিয়ে দিনঃ


শামীম খান, ধামরাই থেকেঃ ঢাকার ধামরাইয়ে সরকার ঘোষিত লকডাউন ভঙ্গ করে (ভেস্টেজ প্রোপার্টি) জমির মাটি কেটে নেয়ার অভিযোগ পেয়ে উপজেলা ভ্রাম্যমাণ আদালত অভিজান চালায়। এ সময় ৭২লাখ টাকা মূল্যের দুটি ভেকুতে অগ্নিসংযোগ করা হয়। বৃহস্পতিবার দুপুরে উপজেলা সহকারি কমিশনার (ভুমি) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট অন্তরা হালদার উপজেলার সানোড়া এলাকায় এ ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযান চালান। এঘটনায় এলাকাবাসী নেচে গেয়ে এলাকায় আনন্দ উল্লাস করেছে বলে জানা গেছে।

এলাকাবাসীর বাধা উপেক্ষা করে ক্ষমতাশীন দলের কতিপয় অসাধূ কর্মকর্তা এবং ব্যক্তিবর্গকে ম্যানেজ করে মাটি লুটেরা সিন্ডিকেট গড়ে তুলে। তারা ভেকু মেশিন দিয়ে দীর্ঘ্যদিন ধরে ভিপি জমিসহ ফসলি জমির মাটি লুট করে আসছিল। এলাকাবাসী বিষয়টি উপজেলা ভ্রাম্যমাণ আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট অন্তরা হালদারকে অবহিত করলে বৃহস্পতিবার দুপুরে তিনি এ অভিযান চালান বলে ভুক্তভোগী এলাকাবাসী ও উপজেলা নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট অন্তরা হালদার নিশ্চিত করেছেন।

এলাকাবাসী জানান,উক্ত এলাকার মিনহাজ উদ্দিনের ছেলে মোঃ লালচাঁনের নেতৃত্বাধীন মাটি রুটেরা সিন্ডিকেট দীর্ঘ্যদিন ধরে ভেকু মেশিন দিয়ে এলাকার হাজার হাজার বিঘা ভিপি জমিসহ কৃষকের তিন ফসলি জমির মাটি কেটে তা বিভিন্ন ইটভাটায় বিক্রি করছে। আমরা তাদের বাঁদা দিলেও তারা পেশী শক্তির বলে এবং স্থানীয় প্রশাসন এবং ক্ষমাতশীন দলের কতিপয় অসাধু কর্মকর্তা ও নেতাকর্মীদের ম্যানেজ করে আমাদের বাঁধা বিপত্তি উপেক্ষা করে স্বীয় কর্মে সক্রিয় রয়েছে। এমনকি সরকারের নির্দেশিত লকডাউন অমান্য করে তাদের কর্মকান্ড চালিয়ে যাচ্ছে।

আমরা নিরুপায় হয়ে শেষমেষ উপজেলা ব্রাম্যমাল আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট অন্তরা হালদারকে অবহিত করি। তিনি সদয় হয়ে বৃহস্পতিবার দুপুর ৩টার দিকে সরেজমিনে আসেন। তার উপস্থিতি টের পেয়ে মাটি লুটেরা লালচাঁদ বাহিনী ঘটনাস্থল থেকে দৌড়ে পালিয়ে যায়। পরে তিনি এস্থানে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করে ৭২লাখ টাকা(প্রতিটি ৩৬লাখ টাকা)মূল্যের দুটি ভেকু মেশিতে অগ্নিসংযোগ করে তা পুড়িয়ে ফেলেন। এ ঘটনায় এলাকাবাসী দারুণভাবে খুশি হয়েছেন। তারা মিষ্টি বিতরণ করে নেচে গেয়ে এলাকায় আনন্দ উল্লাস করেছে ।

মাটি লুটেরা সিন্ডিকেটের লিডার মোঃ লালচাঁন বলেন,ধামরাই জুড়ে সবাইতো মাটির ব্যবসা করছে। আমরা করলে দোষ কি? এছাড়া লকডাউনতো কেউই মানছেনা। কাজ না করলে পেটে বাত যাবে কিভাবে! সেজন্যই আমরা কাজকর্ম চালিয়ে যাচ্ছি। নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ৭২লাখ লাখ টাকা মূল্যের দুটি ভেকু মেশিনে আগুন ধরিয়ে তা পুড়ে দিয়েছে। ভেকু মেশিন ধামরাই সদরের ইসলামপুর মহল্লার মোঃ আব্দুল্লাহ আল মামুন ও ভালুম এলাকার মোঃ আনোয়ার হোসেনের নিকট থেকে ভাড়া এনেছি। এ ক্ষতিপূরণ এখন আমাদেরই দিতে হবে।

মোঃ আব্দুল্লাহ আল মামুন ও মোঃ আনোয়ার হোসেন বলেন,আমরা বৈধ ভেকু ভাড়া দিয়েছি বৈধ কাজের জন্য। কেউ যদি অবৈধ কোন কাজ করার অপরাধে ভেকুর ক্ষতি করে সে দায়দায়িত্ব তার নিজেরই। এ দায়দায়িত্ব আমরা নেবনা। আমরা ভাল ভেকু ভাড়া দিয়েছি,তারা আমাদের সেরকমই বুঝিয়ে দেবে। নাহলে তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।
নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট অন্তরা হালদার দুটি ভেকু মেশিতে আগুন ধরিয়ে পুড়ানোর কথা স্বীকার করে বলেন,যে যেরকম অপরাধ করবে তাকে সেরকমই শাস্তি পেতে হবে। এলাকাবাসীর অভিযোগ ও সরকার ঘোষিত লকডাউন অমান্য করে ভেকু মেশিন দিয়ে মাটি কাটা অব্যাহত রাখায় ভ্রমাম্যমাণ আদালতের এ অভিযান পরিচালনা করা হয়।


শেয়ার করে সকল কে জানিয়ে দিনঃ