জয় দিয়ে পিএসজিতে অভিষেক মেসির

0
17


আলোর যুগ খেলা: পিএসজির জার্সি গায়ে দেখা মিলেছে লিওনেল মেসির। মহাতারকাকে নিজেদের করে নেওয়ার দিনটা দারুণভাবেই রাঙিয়েছে ফরাসি পরাশক্তিরা। কিলিয়ান এমবাপের জোড়া গোলে রেঁসকে তাদেরই মাঠে হারিয়ে দিয়েছে ২-০ ব্যবধানে।

ফরাসি মুল্লুকে মেসির পা পড়েছিল সেই ১০ আগস্ট। সেদিন দলে টানার খবরটা প্রকাশ করে পিএসজি। এরপরের দিন মহাসমারোহে তাকে দলের একজন হিসেবে পরিচিত করার পর্বটাও সেরে ফেলে প্যারিসিয়ানরা। সেই থেকে তার পিএসজি অভিষেকের অপেক্ষার শুরু।

মৌসুম শেষের বিরতির পর ম্যাচফিট হয়ে প্রতিযোগিতামূলক ম্যাচে নামতে হলে পেরোতে হয় প্রাক মৌসুম প্রস্তুতির দীর্ঘ এক প্রক্রিয়া। সেখানে আর্জেন্টিনার হয়ে কোপা আমেরিকা জেতার পর থেকে মাঠেই নামেননি মেসি। ফলে পিএসজিতে নাম লেখানোর পরই মাঠে নামার উপায় ছিল না আর্জেন্টাইন অধিনায়কের।

দলের কোচ মরিসিও পচেত্তিনোরও খুব একটা তাড়া ছিল না, বলেই দিয়েছিলেন, ম্যাচ ফিট হলে তবেই সাবেক বার্সা তারকাকে নামাবেন মাঠে। মাঝে গেল সপ্তাহে গুঞ্জন উঠেছিল, মেসির অভিষেক হলো বলে। কিন্তু শেষমেশ হয়নি, ফলে অপেক্ষার পর্ব শেষই হচ্ছিল না।

এবার কোনো গুঞ্জন নয়, মেসিকে যে ম্যাচে দেখা যাবে, তা একরকম নিশ্চিতই ছিল। তবে একাদশে জায়গা হবে কিনা, তা নিয়ে ছিল প্রশ্ন। সেই প্রশ্নের জবাবও মিলল ম্যাচের ঘণ্টাখানেক আগে। একাদশে নয়, মেসি ম্যাচটা শুরু করলেন বেঞ্চে থেকে। আক্রমণভাগে ফেরেন নেইমার, মৌসুমে প্রথমবারের মতো।

মেসিকে বেঞ্চে রেখেই কিলিয়ান এমবাপে দেখালেন নিজের জাদু। ম্যাচের ১৫ মিনিটে এগিয়ে দিলেন দলকে। মেসি না থাকলে কী হবে, যোগানটা এল এক আর্জেন্টাইনের পা থেকেই। আনহেল ডি মারিয়ার ক্রসে মাথা ছুঁইয়ে টানা দ্বিতীয় ম্যাচে হেড থেকে গোল করেন ফরাসি তারকা।

বিরতির আগে আর খুব একটা আক্রমণে উঠতে পারেনি পিএসজি। বিরতির পর নিজেদের জালে জড়িয়ে যেতে দেখল বল। তবে ভাগ্য ভালো, অফসাইডের খড়গে গোলটা পায়নি স্বাগতিক রেঁস।

না হওয়া সে গোলে যেটুকু আশা জেগেছিল স্বাগতিক শিবিরে, সেটাও উড়িয়ে দিতে সময় নেননি এমবাপে। ৬৩ মিনিটে প্রতি আক্রমণ থেকে আশরাফ হাকিমির ক্রসে পা ছুঁইয়ে ফরাসি তারকা করেন ব্যক্তিগত দ্বিতীয় গোলটি। ম্যাচের সব অনিশ্চয়তা শেষ হয়ে যায় সেখানেই, তবে আকর্ষণটা নয়। ফলাফল ছাপিয়ে এ রাতে ম্যাচের সব আকর্ষণ যে ছিল মেসিতে।