চানাচুর ও চকলেট দেয়ার লোভ দেখিয়ে শিশুকে বলাৎকার

0
62
শেয়ার করে সকল কে জানিয়ে দিনঃ

শামীম খান,( আলোর যুগ প্রতিনিধি) ধামরাই
ঢাকার ধামরাইয়ে এক মুঠো চানাচুর ও চকলেট দেয়ার লোভ দেখিয়ে দুই যুবক এক শিশুকে(১১) বলাৎকার করেছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এলাকাবাসী ওই শিশুকে উদ্ধার করে একটি প্রাইভেট হাসপাতালে চিকিৎসার ব্যবস্থা করেছে। এটনায় জনতার উপর্যুপোরি গণধোলাইয়ের পরও নদী সাতরে পালিয়ে গেছে মানুষরূপী ওই দুই নরপশু। গত বৃহস্পতিবার দুপুরে এ বলাৎকারের ঘটনাটি ঘটেছে উপজেলার স্কুলপাড়া বংশী নদীর পাড়ে একটি পরিত্যক্ত ভিটায়। বিষয়টি নিষ্পত্তির জন্য এলাকায় দেনদরবার শুরু হয়েছে স্থানীয় মাতাব্বরদের মাঝে।
সরেজমিনে গেলে এলাকাবাসী ও ভুক্তভোগী পরিবারের সদস্যরা জানান,বৃহস্পতিবার দুপুর আড়াইটার দিকে উপজেলার কাঁশিপুর এলাকার মোঃ আমিনুর হোসেনের বুদ্ধিপ্রতিবন্ধি ছেলে মোঃ আবির আল নুরকে(১১)পাশের স্কুলপাড়া এলাকার মোঃ দুদু মিয়ার বখাটে ছেলে আব্দুল বারেক(৩৫) ও মৃত আতা মিয়ার ছেলে আল মামুন(২৫)এক মুঠো চানাচুর ও চকলেট দেয়ার কথা বলে ফুঁসলিয়ে বংশী নদীর ধারে আব্দুল জলিলের পরিত্যক্ত ভিটায় নিয়ে যায়।
এরপর গামছা দিয়ে ওই শিশুটির মুখ বেঁধে তার ইচ্ছার বিরুদ্ধে ওই দুই বখাটে ওই বিকৃত যৌন মেলামেশা(বলাৎকার)করে। এতে তার পায়ুপথ ফেটে রক্তাক্ত জখম হলে সে অতিকষ্টে মুখের বাঁধন খুলে গগণবিধারি আর্তচিৎকার করলে পথচারিসহ আশপাশের লোকজন দৌড়ে এগিয়ে এসে পালানোকালে ওই দুই বখাটেকে ইচ্ছামত গণধোলাই দেয়। এরপরও কৌশলে ওই বখাটে নদীতে ঝাঁপ দিয়ে নদী সাঁতরে পারিয়ে যেতে সক্ষম হয়।
এরপর স্থানীয় লোকজন ওই শিশুকে উদ্ধার করে মূমূর্ষূবস্থায় একটি প্রাইভেট হাসপাতালে নিয়ে চিকিৎসার ব্যবস্থা করেন। ইতোমধ্যে বিষয়টি স্থানীয়ভাবে মিমাংসার জন্য মাতাব্বরগণ দেনদরবার শুরু করে দিয়েছেন। তবে ওই দুই বখাটে আত্মগোপন করেছে বলে জানা গেছে।
এব্যাপারে বলাৎকারের শিকার ওই শিশুটির পিতা জানান,ওই মানুষরূপী ওই দুই নরপশুর কান্ডে আমি রীতিমত হতভন্ড। ওরা আমার ছেলের সর্বনাশ করে পেরেছে। আমি এর উপযুক্ত বিচার চাই।
এব্যাপারে ধামরাই থানার ওসি তদন্ত পুলিশ পরিদর্শক মোঃ কামাল হোসেন বলেন,এঘটনায় এখনও কেউ আমাদের কাছে কোন অভিযোগ করেননি। অভিযোগ পেলে এ বিষয়ে অবশ্যই যথাযথ আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।


শেয়ার করে সকল কে জানিয়ে দিনঃ